বীর মুক্তিযোদ্ধা কালজয়ী গানের স্রষ্টা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের প্রয়াণ দিবস আজ

পোস্ট করা হয়েছে 22/01/2021-05:07pm:    এস আহমেদ ডেক্স বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কথা-সুরের উজ্জ্বল নক্ষত্র অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা একাধারে তিনি গীতিকবি, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক। দুই বছর আগে আজকের এই দিনে (২২ জানুয়ারি) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এই সঙ্গীতজ্ঞ। আজ শুক্রবার তার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১৯ সালের ২২ জানুয়ারি সবাইকে কাঁদিয়ে জীবনের ওপারে চলে যান এই কিংবদন্তি সংগীত সাধক।আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের চলে যাওয়ার এ দিনটিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে স্মৃতিচারণ করেন অনেকেই। শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানিয়েছে অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগীরা। ১৯৭০ এর দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে দেশাত্মবোধক গান দিয়ে সুরকার হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলেন তিনি। ১৯৭৮ সালে ‘মেঘ বিজলি বাদল’ সিনেমার মাধ্যমে সুরকার ও সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। এরপর আমৃত্যু নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন সংগীতের সাধনায়। ১৯৮৪ সালে ‘নয়নের আলো’ সিনেমায় তার লেখা ও সুরে ‘আমার সারাদেহ খেয়ো গো মাটি’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন’, ‘আমার বুকের মধ্যেখানে’, ‘আমি তোমার দুটি চোখের দুটি তারা হয়ে থাকব’— প্রতিটা গানই ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। তারপর তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এরপর প্রায় দুই শতাধিক চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করেছিলেন তিনি। তার সুর ও সংগীতে উল্লেখযোগ্য গানের তালিকায় রয়েছে— ‘সব কটা জানালা খুলে দাও না’, ‘মাঝি নাও ছাইড়া দে’, ‘সেই রেললাইনের ধারে’, ‘সুন্দর সুবর্ণ তারুণ্য লাবণ্য’, ‘একতারা লাগে না আমার দোতারাও লাগে না’, ‘আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে’, ‘পৃথিবীর যত সুখ আমি তোমারই ছোঁয়াতে খুঁজে পেয়েছি’, ‘তোমায় দেখলে মনে হয়’ ও ‘বাজারে যাচাই করে দেখিনি তো দাম’। এছাড়াও রয়েছে— ‘আম্মাজান আম্মাজান’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘যে প্রেম স্বর্গ থেকে এসে’, ‘প্রাণের চেয়ে প্রিয়’, ‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’, ‘ঘুমিয়ে থাকো গো সজনী’, ‘তুমি মোর জীবনের ভাবনা’, ‘তুমি আমার এমনই একজন’, ‘একাত্তুরের মা জননী কোথায় তোমার মুক্তিসেনার দল’, ‘জীবন ফুরিয়ে যাবে ভালোবাসা ফুরাবে না জীবনে’, ‘অনেক সাধনার পরে আমি পেলাম তোমার মন’, ‘ওগো সাথী আমার তুমি কেন চলে যাও’, ‘চিঠি লিখেছে বউ আমার’, ‘মাগো আর নয় চুপি চুপি আসা’সহ আরও অনেক শ্রোতাপ্রিয় গান। এর মধ্যে অনেকগুলো তিনি লিখেছেন। ‘প্রেমের তাজমহল’ সিনেমার জন্য তিনি ২০০১ সালে এবং ‘হাজার বছর ধরে’ সিনেমার জন্য ২০০৫ সালে শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি। দেশের সংগীতে অসামান্য অবদানের জন্য ২০১০ সালে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে একুশে পদকে ভূষিত করা হয়। চলচ্চিত্রের জন্য সংগীত পরিচালনার পাশাপাশি দেশের অনেক শিল্পীদের নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করেছিলেন বুলবুল। তার কথা আর সুরে সাবিনা ইয়াসমিন, রুনা লায়লা, সৈয়দ আবদুল হাদি, এন্ড্রু কিশোর, সামিনা চৌধুরী, খালিদ হাসান মিলু, আগুন, কনক চাঁপা, ন্যান্সি, কনাসহ দেশের অনেক জনপ্রিয় শিল্পী গান গেয়েছেন। আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল ১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন।

সর্বশেষ সংবাদ
ডক্টর শাচা ব্লুমেন, ফার্স্ট সেক্রেটারী, অস্ট্রেলিয়া হাইকমিশন, বাংলাদেশ কর্তৃক ইপসা সিভিক প্রকল্প কার্যক্রম পরিদর্শন বাংলাদেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে সেই অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবেনা: প্রধানমন্ত্রী এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকারের শোক ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অটুট থাকবে (সিএমপি) উপ-কমিশনার পদের ৮ কর্মকর্তার দফতর পরিবর্তন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম আর নেই জন্মলগ্ন থেকে বিএনপি গণতন্ত্রের মুখোশের আড়ালে গণতন্ত্র হত্যা:সেতুমন্ত্রী আজ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাত করেন অষ্ট্রেলিয় হাইকমিশনার জেরেমি ব্রুয়ার আগামী ১১ এপ্রিল পাপুলের আসনে উপনির্বাচন আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত জার্মানিতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়াল