হাইওয়ের পাশে ও জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কে গরুর হাট বসতে পারবে না।

পোস্ট করা হয়েছে 16/08/2018-08:19am:    চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেছেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে হাইওয়ের পাশে ও জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তার উপর কোন গরুর হাট বসতে পারবে না। সড়কে গরুর হাট বসালে একদিকে রাস্তায় প্রচন্ড যানজটের সৃষ্টি হবে, অন্যদিকে জনগণ ভোগান্তিতে পড়বে। অনুমোদিত গরুর হাট ছাড়া ইজারাবিহীন কোন গরুর হাট বসালে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।কোরবানির হাটে রোগমুক্ত সুস্থ গরু নিশ্চিত করতে জেলা ও উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের চিকিৎসকেরা দায়িত্ব পালন করবেন। প্রত্যেকটি গরুর হাটের শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের পাশাপাশি ইজারাদারের পক্ষ থেকে ৫০ থেকে ৬০ জন স্বেচ্ছাসেবককে দায়িত্ব পালন করতে হবে। ঈদুল আযহায় জেলায় আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখাসহ জনগণের নির্বিঘেœ ঈদ যাত্রা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি ও পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করলে মানুষ নির্বিঘেœ ঈদ উৎসব উদযাপন করতে পারবে। প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) নুরে আলম মিনা বলেন, আগামী ২২ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আযহা। ঈদে জেলার ১৬টি থানা এলাকায় সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ঈদুল আযহার নিরাপত্তা ও কোরবানির পশুর হাটে মলম পার্টি, চুরি, ছিনতাই, সন্ত্রাসী এবং জঙ্গীবাদসহ যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পোশাকধারী ও সাদা ে পোশাকে ৩ হাজার পুলিশ সদস্য তিন শিফটে দায়িত্ব পালন করবে। হাইওয়ে পুলিশ ও জেলা পুলিশের সাথে কাজ করবে। পশুর হাটে নির্বিঘেœ কেনাকাটা করার সুবিধার্থে পুলিশ ও ইজারাদারদের পক্ষ থেকে জাল টাকা সনাক্তকরণ মেশিনের পাশাপাশি ব্যাংক বুথ স্থাপন করা হবে। বাজারে পুলিশের পক্ষ থেকে কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হবে। যেকোন ধরনের অভিযোগ থাকলে তা কন্ট্রোল রুমে জানানো যাবে। কন্ট্রোল রুমে কাউকে পাওয়া না গেলে পুলিশের হটলাইন নম্বর ৯৯৯ তে কল করে অভিযোগ করলে তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অনুমোদন বিহীন গরু বাজার বসিয়ে রাস্তায় যানজট ও জনসাধারণের চলাচলে বিঘœ ঘটানো যাবে না। থানা, ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশ কিংবা তাদের এজেন্টের মাধ্যমে গবাদি পশুবাহী কোন গাড়ি থামিয়ে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেলে কোন ছাড় নেই। তবে কোন গাড়িতে মাদক কিংবা অবৈধ জিনিস থাকার তথ্য থাকলে শুধুমাত্র এ গাড়ি থামিয়ে তল্লাশি করা হবে। ঈদ মৌসুমে গুরুত্বপূর্ণ সড়কে যত্রতত্র গাড়ি থামিয়ে যাত্রী উঠা-নামা করে যানজট সৃষ্টি, লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল করতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঈদে যানজটমুক্ত পরিবেশে লোকজনের যাত্রা নিশ্চিত করতে নির্দিষ্ট সময় ছাড়া সড়কে কোন ধরনের ট্রাক, লরি ও কাভার্ডভ্যান চলাচল করতে পারবে না। সকলের সার্বিক সহযোগিতায় জেলায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহার আনুষ্ঠানিকতা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থানে থাকবে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় মাল্টিমিডয়ার মাধ্যমে গত জুলাই মাসের খাতওয়ারী অপরাধ চিত্র, সভার সিদ্ধান্ত ও অগ্রগতি তুলে ধরেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহাম্মদ মাশহুদুল কবির। সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) নুরেআলম মিনা বিপিএম, পিপিএম, ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশের এসপি রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোহেল মাহমুদ, পিপিএম, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ইউনিট কমান্ডার মো. মোজাফফর আহম্মদ, কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের লে. কমান্ডার এম. সোহেল রানা, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এড. একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, জেলা আনসার-ভিডিপি কমান্ডডেন্ট আশীষ কুমার ভট্টাচার্য, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার চৌধুরী (চন্দনাইশ), মোজাফফর আহমদ, মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, মুহাম্মদ আলী শাহ, তৌহিদুল হক চৌধুরী, মাহবুবুল আলম চৌধুরী আতাউল হক, জেলা ট্রাক- মিনি ট্রাক এন্ড কাভার্ডভ্যান মালিক গ্রæপের সভাপতি আলহাজ েেমা. আব্দুল মান্নান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপক কুমার রায় (ফটিকছড়ি), গৌতম বাড়ৈ, মোহাম্মদ কামাল হোসেন, শিউলি, মোমেনা আক্তার, আছিয়া খাতুন, আবু আসলাম, আ ন ম বদরুদ্দোজা, মোহাম্মদ মোবারক হোসেন, বিজেন ব্যানার্জী, জুনায়েদ কবির সোহাগ, মোহাম্মদ রাসেলুল কাদের, মোহাম্মদ সাইফুল কবির, তারিকুল আলম, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম জেলার উপ-পরিচালক একেএম শওকত ইসলাম, অধিদপ্তরের মেট্রো অঞ্চলের উপ-পরিচালক শামীম আহমেদ, সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বনিক, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা অঞ্জনা ভট্টাচার্য, পিপিএম, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নিতাই প্রসাদ ঘোষ, বিকেএমইএ’র প্রতিনিধি শওকত ওসমান, হাইওয়ে পুলিশের পরিদর্শক মো. আহসান হাবীব, পৌর মেয়র হাজী আবুল কালাম আবু (বোয়ালখালী), সেলিমুল হক চৌধুরী, মো. ইসমাইল হোসেন প্রমুখ। সভায় সরকারের বিভিন্ন স্তরের কর্মরত কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

সর্বশেষ সংবাদ