শতকরা ৯০ শতাংশ ব্যাংকই দিচ্ছে অনলাইন সেবা

পোস্ট করা হয়েছে 04/05/2015-06:41pm:    বর্তমানে দেশের ৯০ শতাংশ ব্যাংক অনলাইন ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান। রোববার সরকারের ‘ওয়ান স্টুডেন্ট, ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের আওতায় এক্সিম ব্যাংকের ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান। রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বিসিএস মিলনায়তন আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি-বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি ও তথ্যপ্রযুক্তি সচিব শ্যামসুন্দর সিকদার প্রমুখ। গভর্নর বলেন, বর্তমান যুগ তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। উন্নত দেশগুলো অনেক আগেই তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করলেও বর্তমানে উন্নয়নশীল দেশগুলোও দ্রুত এর ব্যবহার বাড়াচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশেও তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার ব্যাপকভাবে বেড়েছে। বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করছে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেকে একটি তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলেছে। সমগ্র ব্যাংকিং খাতকেও তথ্যপ্রযুক্তিসমৃদ্ধ করতে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। ব্যাংকিং খাতের জন্য অনলাইন সিআইবি ও পেমেন্ট সিস্টেম অবকাঠামোতে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োগ ঘটিয়ে এসব কাজকে দ্রুততর করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন তথা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রয়োজনীয় নীতি-সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। যা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। ই-কমার্স কার্যক্রমের সাফল্য তুলে ধরে তিনি বলেন, এখন অনলাইনে গ্রাহকরা নিজ হিসাব থেকে প্রাপকের ব্যাংক হিসাবে ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, গ্রাহকের এক হিসাব থেকে একই ব্যাংকের অন্য হিসাবে অনলাইনে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থ স্থানান্তর, ই-কমার্স ব্যবস্থায় ক্রয়-বিক্রয়ের মূল্য পরিশোধ এবং স্থানীয় মুদ্রায় ইন্টারনেটে ক্রেডিট কার্ডে লেনদেন করা যাচ্ছে। এছাড়া ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন সহজতর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকে ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ স্থাপন করা হয়েছে। ওয়েব পোর্টাল ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য বা সেবা বিক্রয়, ফ্রিল্যান্সিং, বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে প্রাপ্ত অর্থ প্রত্যাবাসন, আন্তর্জাতিক ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে অনলাইনে সীমিত আকারে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের সহজতর নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে সরকারের ‘ওয়ান স্টুডেন্ট, ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের আওতায় এক্সিম ব্যাংকের পক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০, বুয়েটের ২০০ এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০০ জনকে বিনামূল্যে ল্যাপটপ দেয়া হয়।

সর্বশেষ সংবাদ