ইতিহাসে কালের সাক্ষী ৫৩ নং মেহার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

পোস্ট করা হয়েছে 24/10/2019-11:29am:    ওসমান গনি, লেখক সাংবাদিক প্রাবন্ধিকঃ প্রায় শত বছর ধরে মানুষের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে ৫৩ নং মেহার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টি কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলা সদর হতে ১০ কি. মি. দক্ষিণ ও পশ্চিমে ৯ নং মাইজখার ইউনিয়নের মেহার গ্রামে অবস্থিত। এলাকার বয়োজ্যেষ্ঠ লোকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ব্রিটিশ সরকারের আমলে ত্রিপুরা রাজ্যের রাজা বীর বিক্রম মাণিক্য বাহাদুরের রাজত্বকালে উপজেলার মহিচাইলের তৎকালীন জমিদার ভৈরব চন্দ্র সিংহ এর জমিদারিত্বকালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। এলাকার প্রবীণ ব্যক্তি মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আঃ কাদের জানান, তৎসময়ে এলাকায় লেখাপড়া করার জন্য কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল না। যার জন্য ঐ এলাকার শিক্ষাণুরাগী ও দানবীর ব্যক্তি হাজী নজর মামুদ প্রথম বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। উক্ত বিদ্যালয়ে ছাত্র /ছাত্রীরা চতুর্থ শ্রেনি পর্যন্ত পড়া অবস্থায় বিদ্যালয়টি স্থানান্তরিত হয়। তখন এলাকার ওয়াহেদ সরকার ৩৩ শতাংশ ও এয়াকুব আলী সরকার ৯ শতাংশ মোট ৪২ শতাংশ জায়গা বিদ্যালয়ের নামে ওয়াকফ করে দেন। তখন তাদের ও এলাকাবাসীর সমন্বয়ে ১৯৩৯ ইং সনে ৪২ শতাংশ জায়গার ওপর বিদ্যালয়টি গড়ে ওঠে।সেই থেকে আজ পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হলে ১৯৭৩ সালে বিদ্যালয়টি সরকারীকরণ করা হয়।বর্তমানে বিদ্যালয়টির দক্ষিণমূখী একটি দ্বীতল ভবণ রয়েছে। নিচতলার একটি কক্ষ কে অফিস কক্ষ হিসাবে ব্যবহার করা হয়।বাকী ৫ টি কক্ষে ছাত্র /ছাত্রীদের কে পাঠদান করানো হয়। বিদ্যালয়টিতে বর্তমানে চার শতাধিক ছাত্র /ছাত্রী রয়েছে। শ্রেনি কক্ষের অভাবে বর্তমানে লেখাপড়ার বেশি সমস্যা হচ্ছে। ছাত্র/ছাত্রী ও শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছে সুসম্পর্ক। তাদের কে পাঠদান করানোর জন্য ৮ জন শিক্ষক ও শিক্ষিকা রয়েছে। ২ জন পুরুষ ৬ জন মহিলা শিক্ষিক। প্রধান শিক্ষক বাবু নন্দ কিশোর রায় একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষক। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা মাষ্টার্স। তিনি ছেলে-মেয়েদের সুশিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্য অবিরত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তার সহযোগীতায় রয়েছেন দ্বীতিয় পুরুষ শিক্ষক বরুণ কুমার সরকার। তাদের দুইজনের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে প্রতি বছরই পঞ্চম শ্রেনির পরীক্ষায় বৃত্তি পেয়ে থাকে। রয়েছে একজন দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী। বিদ্যালয়ের সামনে অর্থাৎ দক্ষিণ পাশে ছাত্র /ছাত্রীদের জন্য রয়েছে খেলাধুলার মাঠ। সামনে রয়েছে প্রধান শিক্ষকের উদ্যোগে নবনির্মিত একটি শহীদ মিনার।প্রতি বছরের সমাপণী পরীক্ষায় তাদের ফলাফল শতভাগ।পশ্চিম পাশে রয়েছে একটি পুকুর ও একটি মসজিদ। বিদ্যালয়টি পরিচালনা করার জন্য একটি দক্ষ কমিটি রয়েছে। স্কুলের জমি দাতার ওয়ারিশ গন পরিচালনা কমিটিতে রয়েছে। ওসমান গনি চান্দিনা,কুমিল্লা।

সর্বশেষ সংবাদ
ক্ষতিগ্রস্ত ‘উদয়ন এক্সপ্রেস’ ট্রেনের ৬টি বগি চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে চন্দনাইশে পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক উল্টে ডোবায় ট্রেনচালকদের উন্নত প্রশিক্ষণ প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী শিগগিরই পেঁয়াজের মূল্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আসবে: শিল্পমন্ত্রী কৃষিনির্ভর না থেকে শিল্পায়নের পথে যান: প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম-৮ আসনে আসন্ন নির্বাচনে মোছলেম উদ্দিনের দোয়া কামনা নগরীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দুই গ্রুপের মারামারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রেন দূঘটনায় তিনটি তদন্ত কমিটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রেন দূঘটনায় তিনটি তদন্ত কমিটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মন্দভাগ যাত্রীবাহী দুই ট্রেনের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষে ১৭ জন নিহত