হযরত শাহ্ সুফি আমানত খান (রহঃ) এর তিনদিন ব্যাপী বার্ষিক ওরশ শুরু

পোস্ট করা হয়েছে 03/09/2016-04:36pm:    এস,আহমেদ প্রতিবেদনঃ আজ শনিবার চট্টগ্রামের শহর কুতুব , শাহান শাহে আদালত , কুতবুল আকতাব, হযরত শাহ্ সুফি আমানত খান (রহঃ) বাবাজান কেবলার বার্ষিক ওরশ শরীফ দরগাহ শরীফ প্রাঙ্গণে শরিয়ত সম্মতভাবে ঝাকজমকের সাথে উদ্যাপিত হয়। বাবাজান কেবলা (রহঃ) এর পবিত্র বার্ষিক ওরশ শরীফে দেশ বিদেশ থেকে আশেক ভক্তগণ ইতিমধ্যে এসে ইবাদত বন্দেগী করে নিজ নিজ হাজত পুরণে এ মহান আল্লাহর ওলির দরবারে ভিড় জমেছে। উক্ত ওরশ শরীফ উপলক্ষে হযরত শাহ্ সুফি আমানত খান (রহঃ) দরবারে বাদ এ ফজর থেকে খতমে কোরআন,খতমে গাউসিয়া, খতমে খাজেগান, বাবাজান কেবলার জীবনী নিয়ে আলোচনা, মিলাদ মাহফিল সহ বিভিন্ন ধর্মীয় কর্মসূচি শেষে দেশ জাতির উন্নতি কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন বাবাজান কেবলার বংশধর মৌতোয়াল্লী শাজ্জাদানশীন শাহ সুফি আলহাজ্ব শাহজাদা সৈয়দ মুহাম্মদ শওকত আলীখান শাহিন।উক্ত ওরশ শরীফে প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীসহ সকলের সহযোগিতা করার মধ্যদিয়ে আজ থেকে তিনদিন ব্যাপী উক্ত ওরশ চলছে এতে হাজার লক্ষ্য আশেক ভক্তগণ ইতিমধ্যে এসে ইবাদত বন্দেগী করে নিজ নিজ হাজত পুরণে এ মহান আল্লাহর ওলির দরবারে দোয়া কামনা করেন।
হযরত শাহ সূফী আমানত খান (র.)
১৩৪০ খ্রীষ্টাব্দে সোনার গাঁওয়ের স্বাধীন সুলতান ফখরুদ্দীন মোবারক শাহর সেনাপতি কদলখান গাজির সহায়তায় পীর বদরুদ্দীন আল্লামা তাঁর সহচরদের নিয়ে মগদস্যুদের পরাস্ত করে চট্টগ্রাম জয় করলে এখানে ইসলামী শাসনের সূচনা হয়। খ্যাতনামা বারোজন সূফীসাধক ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম এসেছিলেন। চট্টগ্রামস্থ সীতাকুণ্ড থানার সোনাইছড়ি অঞ্চলে যা পরবর্তীকালে বার আউলিয়া নামে সর্বত্র প্রচারিত ও প্রকাশিত তথায় তাঁদের আস্তানা দৃষ্ট হয়। বাংলাদেশের মুর্শিদাবাদ, জাহাঙ্গীর নগর ও ইসলামাবাদ মুঘল আমলের শেষের দিকে সূফীদের আধ্যাত্মিক সাধনার কেন্দ্র হিসাবে ব্যাপক প্রসার লাভ করে। হযরত শাহ সূফী বখতেয়ার মাহি সওয়ার (র.) প্রমুখ আরবীয় সূফী ঐ সময় চট্টগ্রামে এসে বসতি স্থাপন করেছিলেন। তাই চট্টগ্রাম সূফী সাধকদের প্রবেশদ্বার রূপে চিরকাল চিহ্নিত হয়ে থাকবে।
চট্টগ্রাম পাহাড় পর্বত ঘেরা নির্জন পরিবেশ মন্ডিত এলাকা। চট্টগ্রামের এই প্রকৃতি পরিবেশ যেন রাব্বুল আলামীন শুধু সূফীদের আত্মিক ক্রিয়াকলাপের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করেছেন। তাই চট্টগ্রামের সাথে সূফী সাধকদের চমৎকার আধ্যাত্মিক ও জাগতিক যোগাযোগ লক্ষ্যনীয়। শাহ সূফী আমানত খান (র.) বিহার শরীফের নিজ পিত্রালয় ত্যাগ করে আধ্যাত্মিক জগতের আকুল ইশারায় আত্মিক জ্ঞানার্জনের জন্য সুদূর কাশ্মীরের পথে চলে যান। এখানে এসে তিনি উপযুক্ত মুর্শিদের খোঁজ করতে থাকলেন নীরবে। কাশ্মীরের জনৈক বুজর্গ ব্যক্তি তাঁকে মহান অলী হযরত আবদুর রহিম শহীদ (র.) এর সন্ধান বলে দেন।

সর্বশেষ সংবাদ