আজ ক্ষণজন্মা কবি সুকান্তের ৬৮তম মৃত্যুবার্ষিকী

পোস্ট করা হয়েছে 13/05/2015-09:31am:    ঢাকা অফিসঃ আজ ১৩ মে ক্ষণজন্মা কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ৬৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৪৭ সালের এই দিনে মাত্র ২১ বছর বয়সে তাজা বারুদ-এর মতোই আগুনে-ক্ষমতাবান-টগবগে কিশোর প্রায় কবির কলকাতার জয়দবেপুরের একটি হাসপাতালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে অকালে মারা যান। বাংলা সাহিত্যের এক উজ্জ্বল স্ফুলিঙ্গসম কবির নাম সুকান্ত ভট্টাচার্য। অসাধারণ প্রতিভাজাত সুকান্ত কিশোর বয়স থেকেই তাঁর প্রতিবাদী কর্মকান্ডে ও ক্ষুরধার লেখায় সাহিত্যাঙ্গনে আবির্ভূত হয়েই সমাদৃত নাম হয়ে ওঠেন। তার পিতাঃ নিবারণ ভট্টাচার্য। মাঃ সুনীতি দেবী।ভারতে জন্মগ্রহণ করলেও কবির পিতৃপুরুষের নিবাস গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার আমতলী ইউনিয়নের উনশিয়া গ্রামে। সুকান্তের পিতা নিবারণ ভট্টাচার্য কলকাতার কলেজ স্ট্রিটে বইয়ের ব্যবসা করতেন। দীর্ঘদিন কবির পরিবার কলকাতায় অবস্থান করার কারণে তার পূর্ব পুরুষের ভিটাটি বেদখল হয়ে যায়। দীর্ঘ ৫৯ বছর বেদখল থাকার পরে ২০০৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কবির বাড়ি দখল মুক্ত হয়। ১৯২৬ সালের ১৫ আগষ্ট কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য কালীঘাটের মহিমা হালদার স্ট্রিটে মামা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। অনন্য মেধা নিয়েও অত্যধিকভাবে ছাত্র আন্দোলন ও প্রতিবাদ কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ায় সুকান্ত প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে ব্যার্থ হন। এবঙ পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েই আরও অধিক যুক্ত হয়ে পড়েন বামপন্থী রাজনৈতিক দর্শন ও কর্মে। এতে একদিকে তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পরিসমাপ্তি ঘটে বটে, অন্যদিকে বিস্তৃতি লাভ করে তাঁর লেখা ও কর্মক্ষেত্র। অই বয়সে এমন বলিষ্ঠ প্রতিবাদী পঙক্তি রচনা বিরল দৃষ্টান্তের জন্ম দেয়। তিনি লিখতে থাকেন অজস্র দৃপ্ত কবিতা-ছড়া-রচনাবলী। সুকান্তের উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ গুলো- ছাড়পত্র, ঘুম নেই, পূর্বাভাস, অভিযান, হরতাল। কবির প্রতিটি কবিতায় অনাচার ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়েছে

সর্বশেষ সংবাদ